ব্রাহ্মণবাড়িয়া অনলাইন টিভি ডেস্কঃ

কিছুদিন ধরেই আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোতে বেশ প্রচার করছিল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ম্যানচেস্টার ম্যান সিটিতে যোগ দিচ্ছেন। কিন্তু সময়ের অন্যতম সেরা এ তারকা দিন শেষে ফিরলেন সাবেক ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে। শুক্রবার রেড ডেভিলরা নিজেদের ওয়েবসাইটে এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে ইংলিশ জায়ান্টরা জানিয়েছে, ‘ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এটি নিশ্চিত করতে পেরে খুশি কারণ, ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর ট্রান্সফার নিয়ে জুভেন্টাসের সাথে আলোচনা করে চূড়ান্ত করা হয়েছে৷  আর ক্লাবের সবাই ক্রিস্তিয়ানোকে ম্যানচেস্টারে স্বাগতম জানাতে অস্থির হয়ে রয়েছে।’

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর তথ্যানুযায়ী, ৩৬ বছর বয়সী এ তারকাকে ক্লাবে ফিরিয়ে আনতে ইউনাইটেডকে খরচ করতে হয়েছে ২০ মিলিয়ন ইউরো। এছাড়াও অন্যান্য কারণে আরও ৮ মিলিয়ন ইউরো সহ মোট ২৮ মিলিয়ন ইউরো খরচ হবে তাদের। সাবেক ক্লাবে দুই বছরের চুক্তিতে রোনালদোর বার্ষিক বেতন হবে ১৫ মিলিয়ন ইউরো।

সিটির নামটি সবচেয়ে বেশি আলোচিত হয় রোনালদো জুভেন্টাস ছাড়তে চাওয়ার পর থেকে। তবে শুক্রবার হঠাৎ পাল্টে যায় চিত্র৷ শেষ মুহূর্তে নাম আসে তার সাবেক ক্লাব ইউনাইটেড। ইউনাইটেড এক দিনের মধ্যে সব চূড়ান্ত করে ফিরিয়ে আনে রোনালদোকে৷

রোনালদো ২০০৩ সালে প্রথম দফার মধ্য দিয়ে স্পোর্টিং লিসবন থেকে ইউনাইটেডে যোগদিয়েছিলেন৷  তখন রোনালদো  ছিলেন একজন অখ্যাত খেলোয়াড়। কিন্তু ইউনাইটেডের জার্সি গায়েই তিনি বদলে যান৷ গড়ে তুলেন নতুন এক ইতিহাস। ২০০৯ সাল পর্যন্ত ছয়টি মৌসুম কাটিয়ে ২৯২টি ম্যাচে ইউনাইটেডের জার্সিতে গায়ে মাঠে নেমে ১১৮টি গোল করেছেন৷

এরপর যোগ দেন রিয়াল মাদ্রিদে। এ  পর্তুগিজ তারকা সেখান থেকে জুভেন্টাস ঘুরে ১২ বছর পর পুনরায় লাল দুর্গে ফিরেছেন। এবং সাবেক ক্লাব তাকে পেয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত৷

ক্রিস্তিয়ানো জিতেছেন পাঁচটি ব্যালন ডি’অর৷ নিজের ক্যারিয়ারে জিতেছেন ৩০টি শিরোপা। তার মধ্যে চ্যাম্পিয়ন্স লিগই পাঁচবার জিতেছেন । চারটি ক্লাব বিশ্বকাপ, ইংল্যান্ড, স্পেন ও ইতালির লিগ মিলিয়ে মোট জিতেছেন সাতটি শিরোপা।সেই সাথে নিজের দেশ পর্তুগালের হয়ে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপও জিতেছেন এ তারকা।

শেষ পর্যন্ত ইউনাইটেডই ফিরলেন রোনালদো 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া অনলাইন টিভি ডেস্কঃ

প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি) শেষ পর্যন্ত কিলিয়ান এমবাপের কাছে হেরেই যাচ্ছে। এই ফরাসি তরুণ একের পর এক নতুন চুক্তির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিচ্ছেন। সেজন্য ক্লাবটিকে বাধ্য হয়েই তার জন্য বিভিন্ন ক্লাবের দেওয়া প্রস্তাব গ্রহণ করতে হচ্ছে। ফলে এগিয়ে রয়েছে স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ। ফরাসি গণমাধ্যমে এমন সংবাদই প্রকাশ পেয়েছে।

অনেক বছর আগ থেকেই রিয়াল মাদ্রিদ এমবাপেকে নজরে রেখেছে। বিশেষ করে  সবচেয়ে বেশি ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে অসাধারণ পারফরম্যান্সের পর থেকেই তাকে পেতে মরিয়া হয়ে আছে দলটি। কিন্তু এ কারণে তার ক্লাব পিএসজি শুরু থেকেই বাঁধ সাধছে। বর্তমান সময়ের  অন্যতম সেরা তরুণকে হাতছাড়া করতে রাজী নয় ক্লাবটি। আর চলতি মৌসুম শেষেই তাদের সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হচ্ছে এমবাপের। পিএসজি চাইলেও আগামী মৌসুমে তাকে আটকে রাখতে পারবে না৷

তাই সেই সুযোগটাই কাজে লাগাতে চাইছেন এমবাপে। এখন যদি তাকে ছেড়ে না দেওয়া হয় তাহলে আগামী মৌসুমে পিএসজিকে তাকে ছাড়তেই হবে৷ সেজন্য বিনা পয়সায় ছেড়ে দেওয়ার থেকে এমবাপ্পেকে এ মৌসুমে বিক্রি করে দেওয়াটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। তাই অনেকটা বাধ্য হয়েই রিয়ালের দেওয়া এই প্রস্তাবকে বিবেচনা করতে হচ্ছে ফরাসি ক্লাবকে। ফরাসি সংবাদমাধ্যম আরএমসি স্পোর্টস জানিয়েছে, ট্রান্সফার উইন্ডো শেষ হয়ে যাওয়ার আগেই পিএসজি তাকে বিক্রি দেওয়ার চিন্তা করছে৷

রিয়াল মাদ্রিদ এমবাপের অপেক্ষায় চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত খরচ করে কোন খেলোয়াড় কিনেনি৷ ক্লাবটি একজন বড় তারকা কেনার আশায় রয়েছে। সেই সাথে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর শূন্যতা পূরণও করতে চাইছে রিয়াল মাদ্রিদ। কিন্তু তিন বছর পার হয়ে গেলেও রোনালদোর শূন্যতা পূরণ এখনও করতে পারেনি ক্লাবটি। এবং সে শূন্যতা পূরণ করতে একমাত্র এমবাপেই পারেন বলে তাদের বিশ্বাস৷ রিয়াল শেষ পর্যন্ত যদি তাকে না পায় তাহলে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের আর্লিং হালান্ডের পেছনে লাগতে পারে। আরেকদিকে আরএমসির সংবাদ অনুযায়ী, এমবাপে যদি পিএসজি ছাড়েন, তাহলে দলটি এমবাপ্পের শূন্যতা পূরণ করার জন্য জুভেন্টাস থেকে রোনালদোকে কেনার চিন্তা করছে। যদি এমটি হয় তাহলে মেসি-রোনালদোর স্বপ্নের জুটিও দেখতে পারে ফুটবল বিশ্ব।

সূত্রঃ মুহূর্ত টিভি 

এমবাপ্পে কি রিয়ালের অংশ হবে?

ব্রাহ্মণবাড়িয়া অনলাইন টিভি ডেস্কঃ
বার্সেলোনার সাথে দীর্ঘ একুুশ বছরের পথচলায় নিজের নামের সাাথে জার্সির নম্বরটাও যুক্ত হয়েছিল লিওনেল মেসির। যেটি হয়েছিল একটি ব্র্যান্ড। কিন্তু সেইসব এখন হয়ে গেছে অতীত। লিওনেল মেসি এখন পিএসজি পরিবারের সদস্য এবং  সেইখানে তার জার্সি নম্বর হচ্ছে ৩০। বন্ধু নেইমার তার নিজের থাকা ১০ নম্বর জার্সিটা ছেড়ে দিতে চাইলেও আপত্তি জানান মেসি, নেননি সেই ১০ নম্বর জার্সি। বর্তমানে ১০ নম্বর জার্সি নেইমারের কাছেই আছে। কিন্তু বার্সার সেই ১০ নম্বর জার্সিটার কী হবে এখন?

মেসির ভক্তদের দাবি, প্রিয় এই তারকার জার্সিটা বার্সেলোনা যেন একেবারে অবসরে পাঠিয়ে দেয়। যেমন ইতালির ক্লাব নাপোলি কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনার ১০ নম্বর জার্সিটা অবসরে পাঠিয়েছিল। লিগের নিয়মের কারণে আবারও সেটা ফেরত আনতে হয়েছে। বার্সেলোনাও সেই কারণে মেসির জার্সি অবসরে পাঠাতে পারছে না। ফলে প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে বিখ্যাত এই ১০ নম্বরের জার্সি  কার গায়ে চাপতে যাচ্ছে?

 

এ প্রশ্নের জবাবে ব্রাজিলিয়ান তারকা ফিলিপে কুতিনহোর নাম শোনা যাচ্ছে। অবশ্য এই নম্বরটা পাওয়ার জন্য একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল তরুণ ফরোয়ার্ড রেই মানাজের। কিন্তু রবিবার নিবন্ধন শেষে বার্সেলোনা টুইট করে জানিয়েছে, মানাজকে দেওয়া হয়েছে ১৪ নম্বর জার্সিটি। এবং সেটির পর পরই গুঞ্জন শুরু হয়েছে, ১০ নম্বর কি কুতিনহো পাচ্ছেন নাকি অন্য কেউ? কারণ গত মৌসুমে কুতিনহোর জার্সির নম্বর ছিল ১৪৷

লিভারপুলের ১০ নম্বর জার্সি পরতেন বর্তমানে ইনজুরিতে মাঠের বাহির থাকা ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড় কুতিনহো। লিওনেল মেসি চলে যাওয়ার পর এখন বার্সেলোনায় প্লেমেকার হিসেবে তার পারফর্ম করার সুযোগ আগের থেকে আরও অনেকটাই বেড়ে গেছে। সেজন্য স্প্যানিশ ফুটবল পত্রিকা ‘মার্কা’ বলছে, ১০ নম্বর জার্সি পেতে যাচ্ছেন কুতিনহোই। অবশ্য ৩১ই আগস্ট পর্যন্ত জার্সি অদল-বদল করার সুযোগ রয়েছে। সেই ক্ষেত্রে কুতিনহো ফেরত পেতে পারেন ১৪ নম্বর জার্সি।

 

মেসির ১০ নাম্বার জার্সির মালিক এখন কুতিনহো

ব্রাহ্মণবাড়িয়া অনলাইন টিভি ডেস্কঃ
দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার মতো নিউজিল্যান্ডও বাংলাদেশে সফর করবে।নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেডসি)
বাংলাদেশের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের দল ঘোষণা করেছে। সেই সাথে তারা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্কোয়াডের ঘোষণা করে দিয়েছে। বিশ্বকাপ দলের কেউই বাংলাদেশে আসা কিউইদের ১৪ সদস্যের স্কোয়াডে নেই। বাংলাদেশ সফরের পরই পাকিস্তান সফরে যাবে নিউজিল্যান্ড।
আঠারো বছর পর পাকিস্তানে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলবে নিউজিল্যান্ড৷ কিউইরা পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে সিরিজ খেলবে।এনজেডসি টানা জৈব সুরক্ষা বলয়ের ধকল এড়ানোর জন্য এবং আইপিএলে কেন উইলিয়ামসন, কাইল জেমিসন ও ট্রেন্ট বোল্টদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার জন্যই বাংলাদেশ সফরে এই প্রথম সারির ক্রিকেটারদের পাঠাচ্ছে না।

নিউজিল্যান্ড পাকিস্তান সফরের পর ভারতের মাটিতেও টেস্ট সিরিজ খেলবে। টম ল্যাথাম বাংলাদেশ ও পাকিস্তান সফরে নিউজিল্যান্ডের নেতৃত্ব দেবেন। বরাবরের মতই কেন উইলিয়ামসন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলের অধিনায়ক থাকবেন।

 

নিউজিল্যান্ডের বিশ্বকাপ দলে আছেন মিচেল স্যান্টনার, টড অ্যাস্টল, ইশ সোধি, জিমি নিশাম, ড্যারিল মিচেল, ট্রেন্ট বোল্ট, টিম সৌদি, লকি ফার্গুসন, কাইল জেমিসন, টিম সাইফার্ট, মার্টিন গাপটিল ও ডেভন কনওয়েরা। তারা বাংলাদেশ সফরে আসবেন না, এবং পাকিস্তানে ওয়ানডে সিরিজেও যাবে না৷
অ্যাডাম মিলনেকে পনের সদস্যের বিশ্বকাপের দলের বাইরে বাড়তি সদস্য হিসেবেও রাখা হয়েছে। বিশ্বকাপের দলে থাকা গাপটিল, চ্যাপম্যান, অ্যাস্টল ও সোধি বাংলাদেশে না আসলেও পাকিস্তানে টি-টোয়েন্টি সিরিজে যাবেন৷
নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশের বিপক্ষে পাঁচ টি-টোয়েন্টির সিরিজ শুরু ১ সেপ্টেম্বর থেকে, এবং পাকিস্তানে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু ১৭ই সেপ্টেম্বর ও ওয়ানডে সিরিজ ২৫শে সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে৷
বাংলাদেশ সফরের নিউজিল্যান্ড দল সমূহঃ
টম ল্যাথাম (অধিনায়ক), হামিশ বেনেট, ফিন অ্যালেন, টম ব্লান্ডেল, ডগ ব্রেসওয়েল, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, জ্যাকব ডাফি, কোল ম্যাককনকি, স্কট কুগালাইন, হেনরি নিকোলস, এজাজ প্যাটেল, রচিন রবীন্দ্র, বেন সিয়ার্স, উইল ইয়াং, ব্লেয়ার টিকনার।
নিউজিল্যান্ডের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দল সমূহঃ
কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক) ,ট্রেন্ট বোল্ট, টড অ্যাস্টল, ডেভন কনওয়ে, মার্ক চ্যাপম্যান, লকি ফার্গুসন, মার্টিন গাপটিল, কাইল জেমিসন, ডেরিল মিচেল, জিমি নিশাম, মিচেল স্যান্টনার, গ্লেন ফিলিপস, টিম সাইফার্ট, ইশ সোধি, অ্যাডাম মিলনে (১৬তম সদস্য)।
সূত্রঃ মুহূর্ত টিভি

অস্ট্রেলিয়ার পর এবার নিউজিল্যান্ডও দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে বাংলাদেশে আসছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া অনলাইন টিভি ডেস্কঃ
কিছুদিন আগে ঘরের মাঠে মারাকানায় কোপা আমেরিকার শিরোপাটি হারিয়েছে ব্রাজিল। সেদিন কাছের বন্ধু লিওনেল মেসিকে জড়িয়ে ধরে নেইমারের কান্না অনেকের হৃদয়কে ছুঁয়ে গেছে। বর্তমানে এই সময়টা তাদের জন্য খুুুবই কষ্টকর এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু নেইমার হচ্ছে অন্য ধরণের মানুষ। নেইমার হচ্ছেন  ভীষণ আমুদে। তার মনে যত দুঃখ কষ্টই থাকুক না কেন, তিনি জীবনটাকে উপভোগ করতে পছন্দ করেন৷
আর সেই পছন্দ থেকেই এবার নেইমার কিনে ফেলেছেন মার্সিডিজ হেলিকপ্টার৷  এটা কিনতে নেইমারের গুনতে হয়েছে ১ কোটি পাউন্ড! যার বাংলাদেশি মুদ্রায় পরিমাণ হচ্ছে ১১৭ কোটি টাকা। এইচ-১৪৫ মডেলের এই মার্সিডিজ ব্র্যান্ডের এই হেলিকপ্টার একদমই নতুন। ধারণা করা হচ্ছে বিখ্যাত কমিক চরিত্র ব্যাটম্যানের ‘ব্যাটমোবাইল’- এর আদলেই এই হেলিকপ্টারটির ডিজাইন করা হয়েছে।
ডিজাইন এবং দামের কারণেই নেইমারের এই নতুন হেলিকপ্টার নিয়ে চলছে এত তোলপাড়। নেইমার ডিসি কমিকসের অনেক বড় একজন ভক্ত। সেজন্যই ধারণা করা হচ্ছে তিনি এই বিশেষ হেলিকপ্টারটি কিনেছেন৷
নেইমার মার্সিডিজ ব্র্যান্ডের এই হেলিকপ্টারটিকে তার নিজের মতো করে সাজিয়েছেন। এর পেছনে লাগানো আছে নেইমারের লোগো। এবং সেই হেলিকপ্টারটি রিও ডি জেনিরোয় নিজের বাড়ির সামনের বাগানে রেখে ছবি তুলেছেন ব্রাজিলিয়ান এই সুপারস্টার। সেই ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট হওয়ার কিছু সময়ের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায়।
সূত্রঃ মুহূর্ত টিভি

নেইমারের নতুন হেলিকপ্টারের দাম ১১৭ কোটি টাকা

botv িনউজ:

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসন আয়োজিত অমর একুশে বই মেলার তৃতীয় দিন ব্রাহ্মনবাড়িয়ার একমাত্র সৃজনশীল সংগঠন আ ব র নি আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্র একক ও বৃন্দ আবৃত্তি পরিবেশন করেন।

২৩ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ ভাষা মঞ্চে হাবিবুর রহমান পারভেজের গ্রন্থনা ও শারমিন সুলতানার নির্দেশনায় একটি বৃন্দ আবৃত্তি – “একুশের বর্ণমালা” পরিবেশন করা হয়।

হয়।আবৃত্তিশিল্পী ইসরাত, আলিফ, ওমর, মিতি, নেহাল, পৃথুলা। একক আবৃত্তি করেন সংগঠনের র্নিবাহী পরিচালক হাবিবুর রহমান পারভেজ। পরিচালনা করেন আবৃত্তিশিল্পী শারমিন সুলতানা।

###

অমর একুশে বই মেলায় আ ব র নি আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্রের আবৃত্তি পরিবেশনা

botvনিউজঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অভাবনীয় উন্নয়নের রূপকার, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কার্যনিবাহী কমিটির সদস্য, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং অংকুর- অন্বেষা বিদ্যাপীঠের প্রধান পৃষ্ঠপোষক র.আ.ম.উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি বলেছেন, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকাসক্তি থেকে শিক্ষার্থীদের দুরে রাখতে খেলাধূলার বিকল্প নেই। খেলাধূলা শিক্ষার্থীদেরকে বিপথে যাওয়া থেকে বিরত রাখে।

পৌর এলাকার পুনিয়াউটে অবস্থিত অংকুর-অন্বেষা বিদ্যাপীঠের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।
মাউশির (অবসরপ্রাপ্ত) মহাপরিচালক ও অংকুর-অন্বেষা বিদ্যাপীঠ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি প্রফেসর ফাহিমা খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোকতাদির চৌধুরী এমপি আরো বলেন, লেখাপড়ার পাশাপাশি প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকা দরকার। এতে শিক্ষার্থীদের মেধার বিকাশ ঘটবে।

এছাড়াও নিজ পড়ার টেবিলের মতো বাসাবাড়ির পরিবেশটাও পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে অন্যদেরকে ও উৎসাহ দিতে হবে। তিনি বলেন বর্তমান সরকারের আমলে শিক্ষা ক্ষেত্রে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষার উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করছেন।
বাংলার মাটিতে সন্ত্রাসীদের কোন স্থান নেই, উল্লেখ করে মোকতাদির চৌধুরী এমপি আরো বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ রুখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমান, অতিরিক্ত ডিআইজি পদে সদ্য পদোন্নতিপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান পিপিএম (বার), জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অংকুর-অন্বেষা বিদ্যাপীঠের অধ্যক্ষ প্রফেসর মঞ্জুয়ারা বেগম।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন অংকুর-অন্বেষা বিদ্যাপীঠের শিক্ষক আলেয়া জাহান তৃপ্তি ও শারমীন সুলতানা। পরে প্রধান অতিথি ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করেন। পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

অংকুর-অন্বেষা বিদ্যাপীঠের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অনুষ্ঠিত

ফেসবুকে আমরা..