উপজেলা পরিষদের নির্বাচন তিনটিতে বিদ্রোহী এবং দুইটিতে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীরা জয়ী

 

সুমন আহম্মেদ ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ৫টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে তিনটিতে বিদ্রোহী এবং দুইটিতে আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা, সরাইল উপজেলা ও নবীনগর উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যানপদে বিদ্রোহী প্রার্থীরা এবং নাসিরনগর উপজেলা ও আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদে আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। এর আগে একাধিক প্রার্থী না থাকায় জেলার কসবা ও আখাউড়া উপজেলা পরিষদে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীরা চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা পরিষদঃ-
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ফিরোজুর রহমান ( আনারস প্রতীক) ৬৮ হাজার ২৩৩ ভোট পেয়ে বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ( নৌকা প্রতীক) পেয়েছেন ২৬ হাজার ৯০৭ ভোট।

 

নাসিরনগর উপজেলা পরিষদঃ-
নাসিরনগর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ রাফি উদ্দিন আহম্মদ (নৌকা প্রতীক) ৫৯ হাজার ৪৬১ ভোট পেয়ে বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী, আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ.টি.এম, মনিরুজ্জামান সরকার ( আনারস প্রতীক) পেয়েছেন ১৪ হাজার ৫৭৪ ভোট।

সরাইল উপজেলা পরিষদঃ-
সরাইল উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ রফিক উদ্দিন ঠাকুর (ঘোড়া প্রতীক) ৩১ হাজার ৪৮৪ ভোট পেয়ে বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের অপর বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ শের আলম মিয়া ( মোটর সাইকেল প্রতীক) পেয়েছেন ২২ হাজার ৭৫৮ ভোট।

আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদঃ-
আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ হানিফ মুন্সী (নৌকা প্রতীক) ৪৩ হাজার ৪১ ভোট পেয়ে বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আনিছুর রহমান (আনারস প্রতীক) পেয়েছেন ২৫ হাজার ৫৫৫ ভোট।

 

নবীনগর উপজেলা পরিষদঃ-
নবীনগর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান (দোয়াত- কলম প্রতীক) ৪৯ ভোট পেয়ে বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী কাজী জহির উদ্দিন সিদ্দিক টিটু পেয়েছেন ৪৮ হাজার ৬৯০ ভোট।

উল্লেখ্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া ও কসবা উপজেলায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে কসবা উপজেলায় উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক ও আইনমন্ত্রীর সাবেক সহকারি একান্ত সচিব অ্যাডভোকেট রাশেদুল কাউসার ভূইয়া জীবন এবং আখাউড়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক আবুল কাশেম ভূইয়া বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

###

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা..