স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাই স্বামী বলেছেন, ভারতে টিকার উৎপাদন বেড়েছে। ভারতে পর্যাপ্ত পরিমাণে টিকা থাকার পরই আমারা বাংলাদেশকে সরবরাহ করতে পারবো। বাংলাদেশ আমাদের প্রতিবেশী বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ। শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে ফেরার পথে উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

বিক্রম দোরাই স্বামী বলেন, বাংলাদেশ-ভারত দুই দেশের ব্যবসা বাণিজ্য বেড়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতি হলে দুই দেশের ব্যবসা বাণিজ্য আরো বাড়বে। বাংলাদেশকে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়ার বিষয়ে নির্দিষ্ট দিনক্ষণ বলতে পারেন নি ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাই স্বামী।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাই স্বামী আখাউড়া স্থলবন্দরে দু’দেশের শূণ্য রেখায় পৌছলে তাকে স্বাগত জানান আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুমানা আক্তার, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মিজানুর রহমান।

এ সময় হাই কমিশনারের সাথে তাঁর স্ত্রী সঙ্গীতা দুরাই স্বামীসহ স্বজনেরা ছিলেন। উল্লেখ্য গত ১৮ জুলাই বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাই স্বামী ও তাঁর স্ত্রী সঙ্গীতা দুরাই স্বামী আখাউড়া স্থল বন্দর দিয়ে ভারতে যান।

ভারতে পর্যাপ্ত পরিমাণে টিকা থাকার পরই আমারা বাংলাদেশকে সরবরাহ করতে পারবো- বিক্রম দোরাই স্বামী


স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর পশুর চামড়া কিনে বিপাকে পড়েছেন মৌসুমী ব্যবসায়ীরা। তারা বাড়ি বাড়ি ঘুরে চামড়া কিনে পাইকারী ব্যবসায়ীদের কাছে কম মূল্যে চামড়া বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছেন। এতে তাদের বড় অংকের টাকা লোকসান গুনতে হয়েছে। আবার মাঠ পর্যায়ে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীদের সংখ্যা কম থাকায় অধিকাংশ মানুষ তাদের কোরবানীর পশুর চামড়া বিক্রি করতে না পেরে মসজিদ ও এতিমখানায় দান করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয় প্রক্রিয়াজাতকারী কাঁচা চামড়ার দাম ঢাকার বাইরে প্রতি বর্গফুট ৩৩ থেকে ৩৪ টাকা নির্ধারণ করেছে। কিন্তু সেই দামে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চামড়া বিক্রি হয়নি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন পাড়া-মহল্লা থেকে চামড়া কিনে জেলা শহরের পুরাতন কাচারী প্রাঙ্গণ, তোফায়েল আজম মনুমেন্ট (মঠের গোড়া), টি.এ.রোড, জেলরোড, পৌর আধুনিক সুপার মার্কেটসহ বেশ কয়েকটি জায়গায় জড়ো হন। সাধারণত ঈদের দিন বিকেলেই এসব জায়গায় তারা চামড়া নিয়ে বসেন। এসব জায়গা থেকেই ক্রেতারা চামড়া কিনে ট্রাকে করে নিয়ে যায় তাদের গন্তব্যে। তবে জেলার সবচেয়ে বড় চামড়ার বাজার বসে সরাইল উপজেলা সদরের বিকাল বাজারে।

ব্যবসায়ীরা জানান, আগের বছর গুলোতে শহর এবং শহরের আশপাশ এলাকা থেকে অসংখ্য খুচরা ও মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ী এখানে চামড়া নিয়ে আসতেন। কিন্তু এবার সেই সংখ্যা অনেক কম। তাঁদের মতে, আগের বছর গুলোতে লোকসান হওয়ায় এবং প্রত্যাশিত মূল্য না পাওয়ায় এবার অধিকাংশ মৌসুমি ব্যবসায়ী মাঠ পর্যায়ে চামড়া কিনেনি। তবে বিভিন্ন মাদরাসা ও এতিমখানা থেকে চামড়া নিয়ে আসছেন পাইকারদের কাছে। তবে আমরা চামড়া কিনেছি। দাম পাবো কিনা তা নিয়ে শঙ্কায় আছি। মৌসুমী ব্যবসায়ীরা জানান, চামড়া কিনে তাদের লোকসান গুনতে হয়েছে। নগদ দামে চামড়া কিনে পাইকারদের কাছে বাকিতে বিক্রি করতে হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা একটি বড় গরুর চামড়া সর্বোচ্চ ৪০০ টাকা ও মাঝারী গরুর চামড়া ২০০/২৫০ টাকা করে কিনেছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার কাজীপাড়া মহল্লার চামড়া ব্যবসায়ী সেন্টু মিয়া বলেন, ৩০ টাকা ফুট হিসেবে মৌসুমী ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে গরুর ২২ টি চামড়া কিনেছি।

চামড়া ব্যবসায়ী সুমন মিয়া, শরিফ মিয়া শাকিল মিয়া ও মোহাম্মদ কায়েস মিয়া বলেন, তিনি দীর্ঘদিন ধরে চামড়ার ব্যবসা করেন। এ বছর পুঁজি সংকট থাকায় ধার দেনা করে কিছু চামড়া কিনেছি।  ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা করে গরুর চামড়া কিনে পাইকারদের কাছে ৪০০-৫০০ টাকা করে বিক্রি করেছি। এর মধ্যে পরিবহন খরচ তো আছেই।

একজন ব্যবসায়ী বলেন, ৩০০ টাকা দিয়ে একটি চামড়া কিনে লবণ ও প্রক্রিয়াজাত করতে আরও ৩০০ টাকা খরচ হয়। এরপর পরিবহন খরচ দিয়ে ট্যানারিতে পাঠাতে হয়। সে অনুযায়ী মূল্য পাব কিনা নিশ্চয়তা নেই।

পৌর শহরের শিমরাইলকান্দি গ্রামের তারেকুল ইসলাম, কাউতলি গ্রামের মেহেদী হাসান, ফুলবাড়িয়ার খাইরুল কবির বলেন, বুধবার (ঈদের দিন) সন্ধ্যা পর্যন্ত চামড়া কিনতে কেই না আসায় চামড়া মসজিদকে দিয়ে দিয়েছি।

সরাইল উপজেলার চামড়ার ব্যবসায়ী আবুল হোসেন বলেন, মহিষের চামড়া গড়ে ৪০০ টাকা থেকে ৪৫০ টাকায় এবং গরুর চামড়া গড়ে ৩৫০ থেকে ৪৫০ টাকা করে কিনেছি।

তিনি বলেন, আমরা চামড়া ভালো দামে বিক্রি করতে পারলে ভালো দামে চামড়া কিনতাম। এ অবস্থা চলতে থাকলে দেশে চামড়া শিল্প বিরাট ধাক্কা খাবে। দেশের চামড়া শিল্পকে বাঁচাতে হলে সরকারের উচিত এই খাতের প্রতি নজর দেয়া।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর পশুর চামড়া কিনে বিপাকে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা


স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কসবায় সরকার ঘোষিত লকডাউন উপেক্ষা করে রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন। শুক্রবার দুপুরে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হাসিবা খান উপজেলার কাঠেরপুল এলাকায় অবস্থিত “ কিং অব কসবা” রিসোর্টে  ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাদেরকে ৬ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

এ ব্যাপারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) হাসিবা খান বলেন, সরকার ঘোষিত “সবচেয়ে কঠোর” লকডাউন উপেক্ষা করে শুক্রবার দুপুরে উপজেলার কাঠেরপুল এলাকায় “কিং অফ কসবা রিসোর্টে” অনেকেই ঘুরাফেরা করতে আসেন। খবর পেয়ে দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ২৫ জনকে ৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

তিনি আরো বলেন, লকডাউন বাস্তবায়নে আমরা প্রচার-প্রচারণা ও মাস্ক বিতরণের মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করেছি। জনস্বার্থে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

কসবায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন


স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা ও সদর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে করোনাভাইরাস জনিত কারণে কর্মহীন দর্জি, বেদে সম্প্রদায়, তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠী, পরিবহন শ্রমিক, নির্মাণ শ্রমিক, গৃহকর্মী,সংবাদপত্র হকার, ফুটপাতের হকার, ঋষি সম্প্রদায়ের লোকজনসহ বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার ১ হাজার মানুষের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর উপহার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার বেলা ১১টায় স্থানীয় নিয়াজ মুহাম্মদ স্টেডিয়ামে এইসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী।

জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খানের সভাপতিত্বে ও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পঙ্কজ বড়ুয়ার সঞ্চালনায় খাদ্য সামগ্রী বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন, মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান শামীমা আক্তার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি রিয়াজউদ্দিন জামি, সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রহিম বিজন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম.এ.এইচ মাহবুব আলম প্রমুখ।

খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিলো ১০ কেজি করে চাল, ১ লিটার সয়াবিন তেল, আধা কেজি ডাল, আধা কেজি চিনি, আধা কেজি সুজি, আধা কেজি সেমাই, ২০০ গ্রাম দুধ, ১ কেজি আলু, ১ কেজি পেয়াজ ও ২টি সাবান।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি মোকতাদির চৌধুরী  বলেন, আপনারা অতীতে অনেক সরকার দেখেছেন। একমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ছাড়া কোন সরকার দুর্দিনে জনগনের পাশে দাঁড়ায়নি। শেখ হাসিনার সরকার সব সময় মানুষের পাশে থাকে। সে জন্যই আজ কর্মহীন মানুষের মধ্যে খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, দুর্দিনে বিএনপি মানুষের পাশে নেই। তাদের একমাত্র কাজ হচ্ছে আওয়ামী লীগের সমালোচনা করা। বিএনপির তো টাকা-পয়সা কম নেই, কিন্তু তারা অসহায় মানুষের পাশে দাড়ায় না। আওয়ামী লীগ বিরোধ দল থাকলেও জনগণের পাশে থাকে, সরকারে থেকেও আছে।

এ সময় তিনি হেফাজতে ইসলামের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, কিছু লোক আছে তারা শুধু নিতে জানে, দিতে জানে না। তারা সব সময় আল্লাহ-রাসুলের কথা বলেন, কিন্তু কাউকে কিছু দেয় না। তিনি কোরবানির ঈদে সকলকে সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১ হাজার কর্মহীন মানুষের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ


স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিনগরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চিকিৎসা তহবিল থেকে ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, হৃদরোগে প্যারালাইজড ৫ জনসহ বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত ১০০ জন রোগীর মধ্যে চিকিৎসা সহায়তা হিসেবে অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার সকালে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে নাসিরনগর অডিটরিয়ামে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তাদের মধ্যে চেক বিতরণ করা হয়।

প্রধান অতিথি হিসেবে অসুস্থ মানুষের হাতে অনুদানের আর্থিক চেক তুলে দেন স্থানীয় সংসদ সদস্য বি.এম. ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার হালিমা খাতুনের সভাপতিত্বে ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ লিয়াকত আব্বাস টিপুর সঞ্চালনায় চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডাঃ রাফিউদ্দিন আহমেদ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রুবিনা আক্তার, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল্লাহ সরকার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চিকিৎসা তহবিল থেকে ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, হৃদরোগে প্যারালাইজডসহ জটিল রোগে আক্রান্ত ৫ জনকে ১২ লাখ টাকা ও সংসদ সদস্যের ঐচ্ছিক তহবিল হতে একশ জনের মধ্যে পাঁচ লাখ টাকার চেক বিতরণ করা হয়।

নাসিরনগরে অসুস্থ মানুষের মধ্যে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৪ (কসবা-আখাউড়া) আসনের সংসদ সদস্য এবং আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, সকলে মিলে করোনা ভাইরাসকে মোকাবিলা করতে হবে। একমাত্র আল্লাহই পারেন এই অবস্থা থেকে আমাদেরকে পরিত্রাণ দিতে।
তিনি সোমবার দুপুরে কসবা জেলা পরিষদ মিলনায়তনে কসবা উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে করোনা পরিস্থিতি ও আসন্ন ঈদ-উল আযহা উদযাপন নিয়ে ভার্চুয়ালি মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার সাহসিকতায় আমরা করোনাকালে বড় ধরণের প্রভাব থেকে রক্ষা পাচ্ছি। এমন পরিস্থিতে আমরা বিরোধী দলকে করোনাকালে মানুষের পাশে এসে দাঁড়াতে দেখিনি।

এ সময় স্থানীয় সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি আরো বলেন, আপনারা সাংবাদিকতায় সমস্যার তুলে ধরবেন। পাশাপাশি সমস্যা সমাধানের সংবাদও প্রকাশ করবেন বলে আশা করি। এ জন্যে তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের প্রতি অনুরোধ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কসবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল কাওসার ভূইয়া জীবন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ-উল-আলম, কসবা পৌরসভার মেয়র এমরান উদ্দিন জুয়েল, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ মনির হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক এম জি হাক্কানী, কসবা প্রেসক্লাব সভাপতি আব্দুল হান্নান, কসবা উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি খ.ম.হারুনুর রশীদ ঢালী, কুটি ইউপি চেয়ারম্যান ছায়েদুর রহমান স্বপন।

মত বিনিময়কালে কসবা উপজেলা প্রেসক্লাবের জায়গা সহ অফিস ভবনের জন্যে আইনমন্ত্রীর কাছে দাবি জানানো হয়।

কসবায় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে আইনমন্ত্রী


স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
পবিত্র ঈদ-উল আযহা উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জমে উঠেছে অস্থায়ী পশুর হাটগুলো। এর পাশাপাশি খামারগুলোতে চলছে অনলাইনে পশু বেচা-কেনা।

সদর উপজেলার ৫টি ও পৌর এলাকার ১টি পশুর হাট বসেছে গত শনিবার (১৭ জুলাই) থেকে, চলবে ২০ জুলাই পর্যন্ত। তবে কিছু কিছু বাজারে ঈদের দিন সকালেও পশু বেচা কেনা হবে। এসব অস্থায়ী বাজারে মানা হচ্ছেনা স্বাস্থ্যবিধি। মুখে মাস্ক পরিধান না করেই বাজারগুলোতে যাচ্ছেন অধিকাংশ ক্রেতা-বিক্রেতা।

ঈদকে সামনে রেখে ক্রেতা-বিক্রেতারা যাতে অনলাইনে কোরবানীর পশু কেনা-বেচা করতে পারেন সেজন্য জেলা প্রানিসম্পদ কার্যালয়ের উদ্যোগে জেলার প্রতিটি উপজেলায় ফেসবুক পেইজ খোলা হয়েছে। এছাড়াও অনলাইনে গরু বিক্রির জন্য ফেসবুকে পেইজ খুলেছেন বিভিন্ন খামারের পক্ষ থেকে।

জেলা প্রাণীসম্পদ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর পশুর কোন সংকট নেই। প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের তথ্য মতে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় কোরবানীর জন্য পশুর চাহিদা রয়েছে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৬৬২টি। জেলার তালিকাভুক্ত ১২ হাজার ৩৭০টি খামারে কোরবানির জন্য লালন-পালন করা হয়েছে ১ লাখ ৭৭ হাজার ৪৭৭টি পশু। জেলায় চাহিদার তুলনায় অতিরিক্ত পশু রয়েছে ৩ হাজার ৭১৫টি। এছাড়াও বিভিন্ন এলাকায় কৃষকেরা কোরবানীর হাটে বিক্রির জন্য পশু লালন-পালন করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে সদর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সদর উপজেলায় ৫টি ও পৌরসভার উদ্যোগে ১টি অস্থায়ী পশু হাট করা হয়েছে। এ সব হাটে ১৭ জুলাই থেকে বিক্রেতারা তাদের পশু নিয়ে আসছেন। এসব অস্থায়ী বাজার গুলোতে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সুবিধার্থে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। গরু ব্যবসায়ীদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

গত ১৭ তারিখ থেকে বাজারগুলোতে পশু আসতে শুরু করলেও বেচা-বিক্রি তুলনামূলকভাবে একটু কম। ক্রেতারা ঘুরে ঘুরে তাদের তাদের পছন্দসই পশু দেখছেন। পৌর এলাকার ভাদুঘর আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালের পশ্চিমে পৌরসভার উদ্যোগে করা হয়েছে অস্থায়ী পশুর হাট। রোববার দুপুরে সরজমিনে বাজারটিতে গিয়ে দেখা যায় বিভিন্ন এলাকা থেকে বাজারে গরু, ছাগল, মহিষ নিয়ে আসছেন বিক্রেতারা। তবে তারা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না।

কিশোরগঞ্জ জেলার কুরিয়ারচর উপজেলা থেকে আসা বিক্রেতা সাঈদ মিয়া বলেন, তিনি ৬টি গরু নিয়ে শনিবার বাজারে এসেছেন। রোববার দুপুর পর্যন্ত ১টা গরুও বিক্রি করতে পারেন নি। তিনি বলেন, বাজারে ক্রেতা কম। ক্রেতারা এসে শুরু দেখছেন। আশাকরি সোমবার থেকে বাজারে ক্রেতার পরিমাণ বাড়বে।

সদর উপজেলার মজলিশপুর থেকে একটি বড় গরু নিয়ে বাজারে এসেছেন আবু বক্কর নামে একজন বিক্রেতা। তিনি বলেন, তিনি তার গরুর দাম চাচ্ছেন ৬ লাখ টাকা। গরুটিতে কমপক্ষে ১৪ থেকে ১৫ মন মাংস হবে। আবু বক্কর দাবি করেন রোববার পর্যন্ত তার গরুটিই ভাদুঘর বাজারের সবচেয়ে বড় গরু।

বাজারে আসা শফিকুল আলম নামে একজন জানান, তিনি এসেছেন দেখতে। তিনি বলেন, গত ১ সপ্তাহ আগেই তিনি অনলাইনে দেখে কোরবানীর জন্য গরু কিনেছেন। করোনা পরিস্থিতিতে বাজার হবে কিনা এই শঙ্কায় অনেকেই অনলাইনে খামারগুলো থেকে গরু কিনে ফেলেছেন।

ভাদুঘর গরুর বাজারের ইজারাদারের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি মোঃ পলাশ মিয়া বলেন, বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণে কোরবানীর পশু আসলেও বেচা-বিক্রি কম। তিনি বলেন, আশা করি সোমবার থেকে বাজারে ক্রেতা বাড়বে। বেচা-কেনা বাড়বে।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পঙ্কজ বড়ুয়া বলেন, গরুর বাজারগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাজারগুলোতে ৬টি মোবাইল টীম কাজ করছে। তিনি বলেন, ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তার জন্য বাজারগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পুলিশসহ আইন-শৃংখলার বাহিনী নিয়োগ করা হয়েছে। গরু বিক্রেতাদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রানিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ এ.বি.এম সাইফুজামান বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর পশুর কোন সংকট নেই। জেলায় কোরবানীর জন্য পশুর চাহিদা রয়েছে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৬৬২টি। পশু আছে ১ লাখ ৭৭ হাজার ৪৭৭। চাহিদার তুলনায় অতিরিক্ত পশু রয়েছে ৩ হাজার ৭১৫টি।

তিনি বলেন, বাজারগুলোর পাশাপাশি অনলাইনেও কোরবানীর পশু বিক্রি করা হচ্ছে। অনলাইনে পশু কেনা-বেচার জন্য জেলার প্রতিটি উপজেলায় ফেসবুক পেইজ খোলা হয়েছে। এতে খামারীদের যাবতীয় পশুর তথ্য আপলোড করা হচ্ছে। ইতিমধেই বেশ কিছু খামারে অনলাইনে গরু বিক্রি শুরু হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর পশুর কোন সংকট নেই


স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রজনম মৌসুমে দেশীয় প্রজাতির মাছ রক্ষার্থে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।  রোববার সকালে শহরের তিতাস নদীতে সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার মোঃ সামছুদ্দিনের নেতৃত্বে এই অভিযান চালানো হয়।

অভিযানকালে ৫০ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল ও ৩০ সেট চায়না রিং জাল জব্দ করে আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রোববার ভোর ৬টা থেকে সকাল সাড়ে নয়টা পর্যন্ত তিতাস নদীর জেলা সদরের এলাকায় অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় নদী থেকে ৫০ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল ও ৩০ সেট চায়না রিং (ফিক্সড ইঞ্জিন) জাল জব্দ করে পৌর শহরের মেড্ডা এলাকায় জনসম্মুখে পুড়িয়ে বিনষ্ট করা হয়। এসব জালের বাজার মূল্য প্রায় দুই লাখ টাকা। অভিযান চলাকালে মুক্ত জলাশয়ে অবৈধভাবে স্থাপিত “পাটিবাঁধ” অপসারণ করা হয়।

এ ব্যাপারে অভিযান পরিচালনাকারী সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ সামছুদ্দিন বলেন, দেশীয় মাছের পোনা ও প্রজননক্ষম মাছ রক্ষার্থে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুড়ানো হলো ৫০ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল


স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
টিকা নিয়ে আলোচনা করতে দিল্লী গেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী। রোববার সকালে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থল বন্দর দিয়ে ভারতে যান। সকাল পৌনে ৯টার দিকে তিনি ভারতে প্রবেশ করেন।

ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী আখাউড়া স্থল বন্দরে পৌছলে আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুমানা আক্তার তাঁকে অভ্যর্থনা জানান।

স্থল বন্দরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবারে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, টিকা বিষয়ে আলোচনা করতে তিনি দিল্লী যাচ্ছেন।

বাংলাদেশকে কবে নাগাদ করোনার টিকা দেয়া হবে এ বিষয়ে নিশ্চিত করে সময়ক্ষণ বলতে পারেননি তিনি। তবে দ্রুত সময়ের মধ্যে যেন সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত টিকা সরবরাহ করা হয় সে বিষয়ে আলোচনা করতে দিল্লী যাচ্ছেন বলে তিনি জানান।

এ সময় দোরাইস্বামী আরো বলেন, দুই দেশের মধ্যে সড়ক ও রেলপথ সংযোগ দ্রুত শেষ করার লক্ষ্যে দুই দেশই কাজ করছে। এতে উভয়েই লাভবান হবে।

দিল্লী গেলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার


স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা ও সদর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ও ড্রিম ফর ডিসএবিলিটি ফাউন্ডেশনের সমন্বয়ে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে কর্মহীন বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ১২০ জন ব্যক্তির মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর উপহার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। রোববার সকালে স্থানীয় ফারকী পার্কে প্রধান অতিথি হিসেবে জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান তাদের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিলো ১০ কেজি করে চাল, ১ লিটার তেল, ১ কেজি আলু, ১ কেজি পেয়াজ, চিনি, গুড়া দুধ, সাবান ও সুজিসহ নানা উপকরণ।

সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার পঙ্কজ বড়ুয়ার সভাপতিত্বে খাদ্য বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লোকমান হোসেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি রিয়াজউদ্দিন জামি, সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রহিম বিজন, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত, ড্রিম ফর ডিসএবিলিটি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হেদায়েতুল আজিজ মুন্না প্রমুখ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ব্যক্তিদের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

ফেসবুকে আমরা..