ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাঠে নেমেছে ৫ শতাধিক পুলিশ


স্টাফ রিপোর্টার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবরোধে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধি নিষেধ বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে পাঁচ শতাধিক পুলিশ।
সোমবার দুপুর ১২টার পর থেকে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মহড়ার মাধ্যমে শহরের দোকান পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার জন্য কাজ শুরু করেন। পরে পর্যায়ক্রমে শহরের বাণিজ্যিক বিতান, শপিংমলগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান এবং ঔষধের ফার্মেসী ছাড়া সকল দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। মাস্ক ছাড়া কাউকে চলাফেরা করতে দেয়া হচ্ছেনা।

শহরে যানবাহন চলাচলে নিয়ন্ত্রন করার জন্যে প্রবেশ পথগুলোতে চেকপোষ্ট বসানো হয়েছে। মহাসড়ক গুলোতে গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও রিকসা, প্রাইভেটকার, ইজিবাইক, ট্রাকসহ পন্যবাহী যানবাহন চলাচল করছে স্বাভাবিক নিয়মে।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, আগামী বুধবার পর্যন্ত সরকার ঘোষিত সীমিত পরিসরে লকডাউনে আমরা কাউকে অপ্রয়োজনে বাসা থেকে বের হতে দেব না। পুলিশের পক্ষ থেকে নাগরিকদের ঘরে থাকার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। তিনি সকলকে আতংকিত না হয়ে সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) মোল্লা মুহাম্মদ শাহীন জানান, পুলিশের পক্ষ থেকে জেলার ১১৬টি পয়েন্টে ৫ শতাধিক পুলিশ দায়িত্ব পালন করছেন। যেকোনো মূল্যে সরকার ঘোষিত বিধি নিষেধ বাস্তবায়ন করা হবে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন জানান, কঠোর বিধি নিষেধ বাস্তবায়নে পুরো জেলায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১২টি মোবাইল কোর্ট বিভিন্ন স্থানে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া অতিরিক্ত ৬জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটকে দায়িত্ব পালনে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। যারা স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করবেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

এ ব্যাপারে সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ একরাম উল্লাহ জানান, এখন পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৩৭ হাজার ৬৩৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে এখন পর্যন্ত ৪ হাজার ১৯৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘন্টায় ৩৬ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। এখন পর্যন্ত জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে ৬২ জন মারা গেছেন।

বর্তমানে জেলায় সেভ আইসোলেশনে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৩শ ৬৪ জন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ভর্তি আছেন ২০ জন। তাদের সকলেই হালকা এবং মাঝারি আকারের সর্দি-জ্বর, সাধারন উপসর্গে আক্রান্ত। তিনি জেলার সকল নাগরিকদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য আহবান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা..